স্বাস্থ্য টিপস বিডি https://www.shastotipsbd.com/2022/01/tips-for-fat-burn.html

যেসব খাবার মেদ কমাতে সাহায্য করে

যেসব খাবার মেদ কমাতে সাহায্য করে যেসব খাবার মেদ কমাতে সাহায্য করে, মেদ কমানোর উপায়, যে ভাবে মেদ কমানো যায়


শরীরে মেদ হলে চলা-ফেরায় যেমন কষ্ট হয়, তেমনি সৌন্দর্যও নষ্ট হয়। অনেকে ডায়েট-জিম করেও মেদ কমাতে পারেন না। কিন্তু কিছু খাবার আছে যা খেলে আপনার মেদ কমবে, সেই সঙ্গে আপনি থাকবেন সুস্থ ও সুন্দর।

বিশেষজ্ঞদের মতে যেসব খাবার মেদ কমাতে সাহায্য করে-


শাক-সবজি: এ খাবারগুলোতে মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট ও ফাইবার বেশি থাকার কারণে তা কোলেস্টেরল ও পেটের চর্বি কমাতে সাহায্য করে। খাবারের আঁশ চর্বিকণাকে বেঁধে ফেলে এবং মলমূত্রের মাধ্যমে শরীর থেকে বেরিয়ে যেতে সাহায্য করে। মেদ কমাতে কম ক্যালরি এবং বেশি ফাইবারযুক্ত খাবার বেছে নিতে হবে। ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার  খেলে পরিপাক ভালো হয় এবং পেটের বাড়তি মেদ কমাতে সাহায্য করে। শসা, পালংশাক, ঢেঁড়স, লাউ, ক্যাপসিকামসহ বিভিন্ন শাক-সবজি খাদ্য তালিকায় নিয়মিত রাখলে মেদ কমে।


ফল: ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল শরীরের মেদ কমাতে সাহায্য করে। বিশেষ করে আপেল, কমলা, আঙ্গুর, লেবু, পেঁপে, মাল্টা ও টমেটো  মেদ কমানোর পাশাপাশি রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি করে।


মশলা: রান্নায় যেসব মসলা ব্যবহার করা হয়, যেমন রসুন, হলুদ, মরিচ, দারুচিনি, আদা— এগুলো বাংলাদেশের আবহাওয়ার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। মসলার নিজস্ব গুণাগুণের কারণে তা শরীরকে আয়ুর্বেদিক কিছু উপকারিতা দিয়ে থাকে। মরিচ খাবারের স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি খাবার হজমে সাহা্য্য করে এবং শরীরের অতিরিক্ত ক্যালরি পোড়াতে সাহায্য করে। রসুনে বিদ্যমান এলিসিন এবং এলাচে বিদ্যমান থার্মোজেনিক এজেন্ট মেদ কমায়।


ডিম: ডিমে রয়েছে প্রায় সব রকম পুষ্টি। প্রতিদিন সকালে ডিম খেলে সারাদিন বেশি খাওয়ার প্রবণতা থাকে না। 


দুগ্ধজাত খাবার:  টকদই শরীরের মেদ কমাতে সাহায্য করে।


গ্রিন টি: হালকা এ পানীয় কেবল শরীরকে সতেজই রাখে না, সঙ্গে ওজন কমানোর ক্ষেত্রেও কার্যকরী ভূমিকা রাখে। সবুজ চায়ে অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের প্রাচুর্য পরোক্ষভাবে অতিরিক্ত চর্বি ঝরাতে সাহায্য করে। নিয়মিত গ্রিন টি খেলে হজম ক্ষমতা বাড়ে এবং শরীর থেকে ক্ষতিকর পদার্থ বের করে দেয়।


বাদাম: প্রতিদিনের খাবার তালিকায় প্রোটিন থাকা যেমন অত্যাবশ্যক, ঠিক তেমনি জরুরি ‘ফ্যাট’-জাতীয় খাবারের উপস্থিতি। আঁতকে উঠলেন? কিন্তু এটাই সত্যি। পুষ্টিবিজ্ঞানীদের মতে, সব ‘ফ্যাট’ই শরীরের জন্য ক্ষতিকারক নয়। শরীরকে সব ধরনের খাদ্য উপাদানের সুষম বণ্টনই সুস্থতাকে নির্দেশ করে। প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন ও মিনারেলের মতো দেহে ফ্যাটেরও প্রয়োজন। বিশেষ করে কিছু ভিটামিন শোষণের জন্য প্রয়োজন ফ্যাট। বাদামে প্রচুর প্রোটিন ও ফাইবার রয়েছে। এটি খেলে দীর্ঘসময় পেট ভরা থাকে। ফলে অতিরিক্ত খাওয়ার প্রবণতা থাকে না, মেদও বাড়ে না।


অ্যাপল সিডার ভিনেগার:  খাওয়ার আগে এক চামচ ভিনেগার এক গ্লাস পানিতে মিশিয়ে খেলে রুচি কমে। খাওয়ার সময় কম খাওয়ার ফলে শরীরে মেদ জমতে পারে না।


মেদ কমাতে খাবারে অতিরিক্ত লবণ ও চিনি বাদ দিতে হবে। 

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

স্বাস্থ্য টিপস বিডি কি?