স্বাস্থ্য টিপস বিডি https://www.shastotipsbd.com/2022/01/easy-ways-to-survive-an-ant.html

পিঁপড়া হতে বাঁচার সহজ উপায় সমূহ


পিঁপড়ার উপদ্রব থেকে বাঁচার ঘরোয়া সমাধান

গরমকালে খাবারদাবার তো বটেই, জামাকাপড়-বিছানাপত্রেও পিঁপড়ার আক্রমণ ঘটে। খাবার জিনিসপত্র, শোবার জায়গা বা জামাকাপড়ের উপর পোকা মারার ওষুধ ছড়ালে তার ক্ষতিকারক প্রভাব পড়তে পারে। তার চেয়ে এমন কয়েকটি টোটকা ট্রাই করে দেখুন যা আপনার হাতের কাছেই মজুত রয়েছে এবং কোনও রাসায়নিক বিক্রিয়ারও বিন্দুমাত্র আশঙ্কা নেই। 



পিপড়া থেকে বাঁচার উপায় কি?

শশাঃ- পিঁপড়েরা শশা ঘৃণা করে । কিছু শশার খোসা নিয়ে পিঁপড়ের গর্তে অথবা যে জায়গাটায় পিঁপড়ের উৎপাত বেশি, সেখানে রেখে দিন । পিঁপড়েরা উধাও হয়ে যাবে 


দারচিনি: আপনি যে ক্যাবিনেটে খাবার রাখেন, তার মধ্যে এবং আশপাশে খানিকটা দারচিনির গুঁড়ো ছড়িয়ে রেখে দিন। টেবিলে খাবার বা ফল রাখলেও তার চারপাশে দারচিনির পাউডার ছড়িয়ে রাখুন, পিঁপড়া আসবে না৷ দারচিনির এসেনশিয়াল অয়েলও বাজারে কিনতে পাওয়া যায়, তার কয়েক ফোঁটা তুলায় নিয়েও ফ্রিজে বা খাবারের ক্যাবিনেটে রাখতে পারেন।


লেবুর রস: ঘর মোছার পানির বালতিতে সরাসরি লেবুর রস মিশিয়ে নিন। বেশি করে মেশাবেন, বেশি পাতলা হয়ে গেলে লেবুর গন্ধটা থাকবে না। লেবুর গন্ধে পিঁপড়ারা আর খাবারের গন্ধ পায় না। ফ্রিজেও যদি পিঁপড়ার আনাগোনা থাকে, তা হলে সেখানেও লেবুর রস প্রয়োগ করে দেখতে পারেন। সমান পরিমাণ লেবুর রস আর পানি মিশিয়ে আপনার নিজস্ব স্প্রে তৈরি করে নিন। বিছানার ভাঁজেও প্রয়োগ করতে পারেন, তবে অতিরিক্ত মাত্রায় নয়, তা হলে চটচটে লাগতে পারে।


শুকনা মরিচ: শুকনা মরিচের তীব্র ঝাঁজ নাকি পিঁপড়াদের দিগভ্রান্ত করে দেয়, তারা আর বাসায় ফিরে যাওয়ার রাস্তা খুঁজে পায় না। রান্নাঘরে বা ক্যাবিনেটে যদি পিঁপড়ের আক্রমণ বাড়ে, তা হলে গোটা শুকনা মরিচ রেখে দিন। তাওয়ায় তেল ছাড়া ভেজে নেওয়া শুকনা মরিচও পিঁপড়ের হাত থেকে বাঁচাতে সক্ষম।


পিপারমিন্ট: পিপারমিন্ট এসেনশিয়াল অয়েল পানিতে মিশিয়ে স্প্রে হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। বেশ কয়েকটি পুদিনার পাতা এক গ্লাস পানিতে ভালো করে ফুটিয়ে নিয়ে ছেঁকে নিন এবং স্প্রে করুন চারদিকে। চড়া গন্ধে পিঁপড়ার দল পালাতে পথ পাবে না।


সাদা ভিনিগার: সমান পরিমাণে সাদা ভিনিগার আর পানি মিশিয়ে ভরে নিন স্প্রে মেশিনে। এই স্প্রে ছিটিয়ে দিলে পিঁপড়ার হাত থেকে তখনই মুক্তি পাবেন। তবে প্রতিবার ব্যবহারের আগে অবশ্যই একবার বোতলটা ভালো করে ঝাঁকিয়ে নেবেন।


দারুচিনির এসেনশিয়াল অয়েল: দারুচিনির এসেনশিয়াল অয়েলও বাজারে কিনতে পাওয়া যায়, তার কয়েক ফোঁটা তুলোয় নিয়েও ফ্রিজে বা খাবার রাখার স্থানে রাখতে পারেন।


পুদিনার পাতা: কয়েকটি পুদিনার পাতা এক গ্লাস পানিতে ভালো করে ফুটিয়ে ছেঁকে নিন এবং স্প্রে করুন চারদিকে। চড়া গন্ধে পিঁপড়ার দল পালাতে পথ পাবে না!


বোরাক্স পাউডারঃ পানি, চিনির সাথে বোরাক্স মিশিয়ে একটি পেস্ট বানিয়ে নিন। পিঁপড়া চলাচলের জায়গায় পেস্টটি রেখে দিলে কিছুদিনের মাঝেই দেখবেন পিঁপড়ার উপদ্রব ক্রমশ কমে এসেছে। তবে এটি বাচ্চাদের জন্য বেশ বিপদজনক। সব সময় যেন এটি বাচ্চাদের হাতের নাগালের বাইরে থাকে সেই বিষয়টি নিশ্চিত করুন।


ফুটন্ত পানি এবং ডিশ ওয়াশিং সাবানঃ যে সব জায়গায় পিঁপড়ার উপদ্রব বেশি বলে মনে হয় সেখানে তরল ডিশ ওয়াশিং সাবানের সাথে পানি মিশিয়ে তা স্প্রে করতে হবে। বাড়ির আশেপাশে কোথাও পিঁপড়ার বাসা থাকলে তাতে ফুটন্ত গরম পানি ঢেলে দিলেও উপদ্রব কমবে।


বাড়ি পরিস্কার রাখুনঃ ঘর-বাড়ি পিঁপড়ে এবং অন্যান্য কীট-পতঙ্গের থেকে মুক্ত রাখতে হলে প্রথম প্রয়োজন প্রতিদিন ঘরের সব কোনা ঠিকমতো পরিস্কার রাখা। জলে কীটনাশক লিক্যুইড মিশিয়ে প্রতিদিন দু-বার করে ঘর মুছুন। কোথাও নোংরা জমতে দেবেন না। খাবারের অবশিষ্টাংশ ডাস্টবিনে ফেলুন। ডায়নিং টেবিলে দীর্ঘক্ষণ ফেলে রাখবেন না। খাওয়ার পর বাসনপত্র সঙ্গে সঙ্গে ধুয়ে ফেলুন।



অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

স্বাস্থ্য টিপস বিডি কি?